আপনার শিশু কি সঠিক ভাবে বেড়ে উঠছে?

শিশুর বেড়ে ওঠার স্বাভাবিক ধাপ গুল না জানার কারনে আমাদের অনেকেই বাচ্চার বিকাশগত সমস্যা গুল ধরতে পারি না এবং দেরি করে ব্যবস্থা নেয়ার কারনে বাচ্চার বিকাশ অনেক সময় বাধাগ্রস্থ হয়। আসুন আমরা জেনে নেই একটি স্বাভাবিক বিকাশ হচ্ছে এমন বাচ্চা কোন বয়সে কি কি করে থাকেঃ

৪ মাস বয়সেঃ

  • উজ্জ্বল রঙের বস্ত ও এর নড়াচড়ার দিকে খেয়াল করে এবং সাড়া দেয়।
  • শব্দের দিকে ঘুরে তাকায়।
  • অন্যের চেহারার দিকে আগ্রহ নিয়ে তাকায়।
  • আপনি তার দিকে তাকিয়ে হাসলে সেও ফিরতি হাসি দেয়।

৬ মাস বয়সেঃ

  • আপনার সাথে আনন্দ নিয়ে যুক্ত থাকে।
  • তার সাথে খেলার সময় মাঝে মাঝে হাসে।
  • আনন্দ পেলে কু কু বা অন্য আনন্দ বোধক শব্দ করে।
  • কিছু ভাল না লাগলে কাঁদে।

৯ মাস বয়সেঃ

  • আপনার দিকে তাকিয়ে হাসি দেয়।
  • আপনার সাথে হাসি বিনিময় করে, আনন্দ ও ভালবাসা প্রকাশ করে।
  • আপনার সাথে শব্দ বিনিময় করতে শুরু করে।
  • আপনার সাথে দেয়া, নেয়া ইত্যাদি শুরু করে।

১২ মাস বয়সেঃ

  • অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে সে আপনার কোন কিছু দিতে, নিতে, আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিতে চেষ্টা করে।
  • টুকি টুকি খেলা, ইত্যাদি করতে পারে ও আনন্দিত হয়।
  • বাব বা, মাম মা, দাদ দা ইত্যাদি বাব্লিং শব্দ করতে শুরু করে।
  • তার নাম ধরে ডাকলে সেদিকে ঘুরে তাকায়।

১৫ মাস বয়সেঃ

  • আপনার সাথে বেশ ভাল ভাবেই হাসি, শব্দ, অঙ্গভঙ্গি বিনিময় করতে পারবে।
  • যেটা পছন্দ, সেটার দিকে পয়েন্ট করতে পারে।
  • যেটা পছন্দ, সেটার দিকে শব্দ করে বুঝাতে পারে।
  • অন্তত ২-৩ টা বব্দ অর্থ বুঝে ব্যবহার করতে পারে যেমনঃ বাবা, মামা, দাদা, বায় বায় ইত্যাদি।

১৮ মাস বয়সেঃ

  • শব্দ ও দেহ ভঙ্গির সমন্বয়ে সে নিজের চাহিদা গুল বেশ ভাল ভাবেই বুঝাতে পারে।
  • ম , ন, প, ব, ট, ড ইত্যাদি সংক্রান্ত অন্তত ৪ টি শব্দ পুর্ন রুপে বা বাব্লিং করে বলতে পারে।
  • অন্তত ১০ টি শব্দ উচ্চারন ও বুঝে ব্যবহার করতে পারে।
  • নিয়মিত দেখে এমন পরিচিত মানুষের নাম বললে তাদের দিকে ঘুরে তাকায় বা পয়েন্ট করে দেখাতে পারে।
  • কিছু কিছু বডি পার্ট যেমন হাত, মাথা, চোখ ইত্যাদি দেখাতে পারে।
  • সাধারণ মিছা মিছি খেলা খেলতে পারে, যেমন রান্নাবাটি, পুতুল কে ফিডার খাওয়ানো ইত্যাদি।

২৪ মাস বয়সেঃ

  • একটু জটিল করে মিছামিছি খেলতে পারে, যেমন, পুতুলকে ফিডার খাইয়ে তার পর ঘুম পাড়ানো।
  • অন্তত ৫০ টির মত শব্দ বুঝে এবং ব্যবহার করতে পারে।
  • অন্তত ২ টি শব্দের বাক্য বানাতে পারে, যেমন ভাত খাব, পানি দাও ইত্যাদি।
  • একই বয়সের অন্য বাচ্চাদের সাথে আনন্দ নিয়ে থাকে ও খেলতে পারে, খেলনা বিনিময় ও করে থাকে।
  • পরিচিত বস্তু খুঁজতে বললে খুঁজে আনার চেষ্টা করে।

৩৬ মাস বয়সেঃ

  • বিভিন্য ক্যারেক্টার কল্পনা করে রোল প্লে করতে পারে, অন্যদের সাথে এভাবে খেলতে পারে।
  • একই বয়সের অন্য বাচ্চাদের সাথে খেলতে পছিন্দ করে এমন কি কোন খেলনার বিষয়ে গল্প ও করতে পারে।
  • কথা বলায় চিন্তা ও কথার সমন্বয় ঘটাতে পারে, যেমন খেলার সময় হত বলল, বেবি ডল এর ক্ষুধা পেয়েছে, তাকে খেতে দাও।
  • কি, কোথায়, কে ইত্যাদি প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে।
  • বর্তমান অথবা ভবিষ্যতের পছন্দ, আগ্রহ ইত্যাদি বিষয়ে বলতে পারে।

উপরের আলোচনা থেকে আমরা জানলাম একটি বিকাশমান শিশু কোন বয়সে কি কি করতে পারে। তবে প্রত্যেক সিশুই স্বতন্ত্র। কেউ কেউ কিছু জিনিষ কয়েক মাস আগে পরে শিখতে পারে। তবে বেশিরভাগ মাইলস্টোন যদি মিস করে তাহলে উচিৎ হবে আপনার বাচ্চার শিশু বিশেষজ্ঞের সাথে অথবা শিশু বিকাশ নিয়ে কাজ করেন এমন চিকিৎসা পেশাজিবি দের সাথে কথা বলা। মনে রাখতে হবে দ্রুত নিরূপণ ও বিকাশ গত সমস্যার জন্য বিভিন্ন থেরাপির মাধ্যমে অনেক বাচ্চার সমস্যা অনেক আংশে লাঘব করা সম্ভব। গবেষণায় দেখা গেছে বিকাশ গত সমসস্যা গুল ১৮ মাস থেকে ২৪ মাস বয়সের মধ্যে নির্নয় ও সেই মোতাবেক ব্যবস্থা নিলে বেশি বয়সে ব্যবস্থা নেয়ার চেয়ে বহু গুন উত্তম ফলাফল পাওয়া যায়।

 

ডিসেম্বার, ২০১৬, ওসমান, নিউরো রিহ্যাবিলিটেশন বিশেষজ্ঞ, আই এন ডি আর। ০১৯৩১৪০৫৯৮৬

Please Share:

Related posts

Leave a Comment